Friday, 23 November 2012

বিভিন্ন “সাইকোসোমাটিক” রোগ (মনের কারনে দেহের রোগ)

যে ক্ষেত্রে মানসিক বা আবেগজাত কারণে নিম্ন বর্নিত রোগ দেখা দেয় সেই ক্ষেত্রেই রোগকে সাইকোসোম্যাটিক রোগ বলা হয়। তবে মনে রাখতে হবে এই সকল রোগের পিছনে বহুবিধ কারন থাকতে পারে। 
1. ব্রঙ্কিয়াল এজমা(bronchial asthma) 


2. দ্রুত শ্বাস-প্রশ্বাস বা হাইপারভেন্টিলেশন সিনড্রোম (hyperventilation) 
3. হিক্কা (hiccoughs) 
4. হাইপারটেনশন(hypertension) 
5. হার্ট এটাক (heart attack) 
6. মাংশপেশীর আক্ষেপ (muscle cramps) 
7. মাথার যন্ত্রনা (tension headache) 
8. পেপটিক আলসার 
9. ক্রনিক গ্যাস্ট্রাইটিস(chronic gastritis) 
10. একজিমা(eczema) 
11. আমবাত(hives) 
12. রক্ত ও রক্তবহানালী সংক্রান্ত সমস্যা। 
13. স্ত্রী-রজঃসম্পর্কীয় সমস্যা। 
14. প্রস্রাব সংক্রান্ত অসুবিধা। 
15. অন্তঃক্ষরাগ্রন্থিগুলির রস(হরমোন) ক্ষরন সংক্রান্ত পীড়া। 
16. যৌন দূর্বলতা। 
17. স্নায়ুতন্ত্র সম্পর্কীয় সমস্যা। ইত্যাদি। 

উল্লেখিত যে কোন সাইকোসোম্যাটিক রোগের ক্ষেত্রেই শারীরিক উপসর্গ গুলোর চিকিৎসার সংগে সংগে মানসিক চিকিৎসাও করানো উচিত। মানসিক চিকিৎসার মধ্যে 

 # সাইকোথেরাপি 
# সাইকোএনালাইসিস 
# বিহেভিয়ার থেরাপি প্রভৃতি রোগের প্রকৃতি বুঝে ব্যবহার করা হয়। শারীরিক ও মানসিক উভয় দিক থেকে চিকিৎসা করালে তবেই পুরোপুরি রোগ থেকে মুক্ত হওয়া সম্ভব। 
শারীরিক উপসর্গ গুলোর চিকিৎসার জন্য ঐ রোগের উপর কোন স্পেশালিস্ট চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে ।

No comments:

Post a comment