Friday, 4 September 2015

ভয়োরিজম

ভয়োরিজম
একটি মানসিক অসুস্থতার নাম। আমাদের অনেকের মধ্যেই বিরাজমান।
এটি একটি বিকারগ্রস্ত মনোব্যাধি। রোগী গোপনে গোপনে বা আড়াল থেকে অন্যের রতিক্রিয়া দেখে পুলক লাভ করে। রোগী অন্যের ব্যক্তিগত জীবনে অবৈধ অনুপ্রবেশ করে। সেই অনুপ্রবেশ কতটা নৈতিক-অনৈতিক, উচিত-অনুচিত, শালীন-অশালীন, সভ্য-অসভ্য তার ন্যূনতম সীমারেখাটি রোগী বুঝতে চায় না বা পারে না। কিংবা জানলেও, না জানার ভান করে, না মানার দুর্নিবার পণ করে অনেকটা জোর করে অন্যের ব্যক্তিজীবনে ঢুকে পড়ে। এতে যেন রোগী তৃপ্তি বোধ করে।
নাট্যাভিনেত্রী সুমাইয়া শিমুর বিয়ে একটা উদাহরণ। তার বিয়ে নিয়ে ফেসবুকে তোলপাড়। সুমাইয়া শিমু কাকে বিয়ে করল কী করল না, সেই লোক কালো কী ফর্সা, লম্বা কী বেটে, মোটা কী চিকন, ভূড়ি আছে কী নেই- তা নিয়ে আমাদের এতো মাথাব্যথা কেন? ফেসবুকের পাতাজুড়ে যেন একটা অসভ্যতার চারণ ভূমি। যে কেউ, যে কারও সম্পর্কে, যেকোনো মন্তব্য ছুড়ে দিয়ে আমরা যেনো বেশ পুলকবোধ করি। এই মন্তব্যে কারো সামাজিক সম্মান, আর্থিক, মানসিক, শারীরিক ক্ষতি ও ঝুঁকির কারণ হচ্ছে কিনা তা ভাববার বিন্দুমাত্র প্রয়োজনবোধ করি না।
জীবন যার, জীবনের সিদ্ধান্তও তার। একটা মানুষকে বাইরে থেকে যতই ভাল কিংবা খারাপ দেখি না কেন তার ব্যক্তি জীবন কখনো বোঝা যায় না । তাই বাইরে থেকে অন্যের ব্যক্তিজীবন সম্পর্কে, দাম্পত্য সম্পর্কে, যৌন জীবন সম্পর্কে মন্তব্য করা, উপদেশ দেয়া অন্যায় এবং মানসিক অসুস্থতার লক্ষণ।

No comments:

Post a comment