Saturday, 12 September 2015

মোবাইল ছাড়া থাকতে না পারার রোগ ‘নমোফোবিয়া’

মোবাইল ফোন ছাড়া কি নিজেকে একেবারে অসহায় মনে হয়? মোবাইলে ব্যটারী শেষ কিংবা মোবাইল কাজ করছে না - এমন আতংকে ভুগছেন?   

লোয়া স্টেট ইউনিভার্সিটির গবেষক কাগলার ইলদ্রিম ও অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর অ্যানা-পওলা কোরেয়া এই আধুনিক জীবনের এই ফোবিয়ার ৪টি মাত্রা তুলে ধরেছেন। তাদের সমীক্ষায় অংশগ্রহণকারীরা এই প্রশ্নের উত্তরে ১(একেবারেই একমত নন) থেকে ৭(পুরোপুরি সহমত) পর্যন্ত নম্বরে নিজেদের র‌্যাঙ্ক করেছেন।
তাদের এ্ই পর্যালোচনার মাধ্যমে আধুনিককালের চারটি ভীতি চিহ্নিত করতে সমর্থ হয়। 
সেগুলো হল- যোগাযোগ হারানোর ভয়, যোগাযোগ করতে না পারার ভয়, তথ্য এবং সুবিধা না পাওয়ার ভয়।
এ প্রশ্নগুলোর ওপরেই নির্ভর করবে আপনি নমোফোব কি না।
প্রশ্নগুলো ছিল এরকম-
স্মার্টফোন থেকে অনবরত তথ্য না পেলে আমি অস্বস্তি বোধ করি
যখন প্রয়োজন তখন স্মার্টফোনে তথ্য ঘাঁটতে না পারলে বিরক্ত হই
স্মার্টফোনে খবর না পেলে নিজেকে দুর্বল মনে হয়
স্মার্টফোনের ব্যাটারির চার্জ ফুরিয়ে যাওয়ার আতঙ্কে ভুগি
মাসিক ডেটা লিমিট পেরিয়ে গেলে ভীত হয়ে পড়ি
ডেটা সিগন্যাল না পেলে ওয়াইফাই খুঁজতে মরিয়া হয়ে পড়ি
অনেকক্ষণ ফোন ব্যবহার করতে না পরলে নিজেকে বন্দি মনে হয় বা ফোন হাতে পেতে মরিয়া হয়ে উঠি
আরেকটি প্রশ্নপত্রে জানতে চাওয়া হয়েছিল সঙ্গে ফোন না থাকলে কী ধরণের অনুভূতি হয়-
বন্ধু বা পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ না করতে পেরে উত্কণ্ঠায় ভুগি
টেক্সট মেসেজ বা কল পাবো না ভেবে ভীত হয়ে পড়ি
সোশ্যাল মিডিয়া আপডেটেড থাকতে না পেরে অস্বস্তিতে ভুগি
কী করবো ভেবে উঠতে পারি না 


গবেষকগণ কম্পিউটারস ইন হিউম্যান বিহেইভিয়র জার্নালে জানায়, এভাবে প্রত্যেক অংশগ্রহণকারীর উত্তরগুলোর মান এককভাবে যোগ করে দেখা গেছে সর্বোচ্চ নম্বর পেয়ে এগিয়ে আছে স্মার্টফোন হারানো ভীতি বা নমোফোবিয়া। 

No comments:

Post a comment