Thursday, 26 May 2016

"আবেগ" এবং আত্মঘাতী মৃত্যু ভাবনা: সুইসাইড

অতি সম্প্রতি এক কিশোরী মডেলের সুইসাইড, পরীক্ষায় ভুলবশত খারাপ রেজাল্ট শো করায় ৪ তালার উপর থেকে লাফ দিয়ে আত্মহত্যা করা। কিংবা প্রেমিক বিট্রে করায় গলায় রশি দেয়া- এ রকমই ছিল গত কয়েকদিনের খবর।
এগুলি বেশীর ভাগই কিন্তু ইম্পুলসিভ কাজ। এসব আত্মহত্যার উদ্দেশ্য কখনোই মৃত্যু নয়! শুধু মাত্র সাময়িক ভাবে মুক্তি খোঁজে। মৃত্যুর জন্য আত্মহত্যার চিন্তা কখনোই স্বাভাবিক হতে পারে না। এসব মানুষই কিন্তু সাধারণত বলে ‘আমি মরতে চাই না’,আবার সমস্যায় পড়লে তারাই আত্মঘাতী চিন্তা করে।
যারা আত্মহত্যা করেন তাদের বাঁচার আকাঙ্ক্ষা আর দশজন সাধারণ মানুষের তুলনায় অনেক বেশি থাকে। একই সঙ্গে জীবনযাত্রা নিয়েও থাকে তাদের সুপরিকল্পিত ভাবনা। কিন্তু তাদের ফোকাস থাকে কোন নির্দিষ্ট এক দিকে। এই নির্দিষ্ট ফোকাস থেকে তাদের দৃষ্টি সরাতে পারলেই তাদেরকে এই আত্মঘাতী চিন্তা থেকে সরিয়ে আনা সম্ভব।
যন্ত্রণা, একাকীত্ব এবং হতাশা মানুষের মনকে উদ্বিগ্ন করে তোলে। আর এই উদ্বিগ্নতা এক সময় মানুষকে অসহ্য করে তোলে।
তখনই মানুষ আত্মহত্যার মধ্যে মুক্তির পথ খুঁজে। আত্মহত্যাকেই তখন হয়তো উত্তর বলে মনে হয়।
এটা প্রমাণিত যে, অন্যান্য মানসিক কারণের চেয়ে হতাশাগ্রস্ত মানুষ আত্মহত্যা বেশী করে থাকে।
স্কুল, কলেজে মাঝে মাঝে ছোট ছোট সেমিনার, প্রচার করলে আমরা কিন্তু অনেক মানুষের মূল্যবান জীবন রক্ষা করতে সম্ভব হবো।

No comments:

Post a comment